মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ইউনিয়ন পরিষদের কার্যাবলী

  • ছাইকোলা ইউনিয়নের আভ্যন্তরীন রাস্তা গুলো উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন প্রকার উন্নয়ন কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। রাস্তাগুলো সংস্কার/উন্নয়ন করা হলে প্রত্যন্ত গ্রামের উৎপন্ন ফসলাদি সহজেই হাটে-বাজারে নেয়া সম্ভব হবে এবং এতে এই ইউনিয়নের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ঘটবে।

 

  • ছাইকোলা ইউনিয়নের সকল রাস্তার দু’পার্শ্বে গাছ লাগানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিপূর্বে এই ইউনিয়নে প্রায় ১৫ হাজার খেজুর ও ৫ শত তালের গাছ রোপন করা হয়েছে। এছাড়া বৃক্ষ রোপনে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক ব্যাপক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।

 

  • এই ইউনিয়নের শিক্ষার মান উন্নয়নে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক বহুবিধ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে বিদ্যমান শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহের উন্নয়ন ঘটানো হয়েছে। ছাত্র-ছাত্রীদের বসার জন্য বেঞ্চ, হাই বেঞ্চ, শিক্ষক-কর্মচারীদের জন্য চেয়ার, টেবিল, প্রতিষ্ঠানে ব্যবহারের জন্য আলমিরা ইত্যাদি সরবরাহ করা হয়েছে। এছাড়া ইউনিয়নের ৬ বছর বয়স্ক প্রতিটি শিশু যাতে স্কুলে গমণ করে সেজন্য উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচী গৃহীত হয়েছে। শিশুদেরকে বিদ্যালয়মূখী করার জন্য অভিভাবকদের সাথে মতবিনিময় করণ সহ সকল প্রকার পদক্ষেপ গৃহীত হয়েছে।

 

  • এই ইউনিয়ন পরিষদ খাদ্য শস্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে যথাযথ গুরুত্ব আরোপ করেছে। অনাবাদী জমিগুলো চাষাবাদের আওতায় আনার জন্য চাষীদেরকে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। চাষাধীন জমিতে অধিক ফসল উৎপাদনের কর্মপরিকল্পনা প্রস্ত্তত করা হয়। প্রত্যেক বছরের প্রথমে ফসল ওয়ারী সার ও বীজের চাহিদা তৈরী করে উপজেলা কৃষি অফিসারের নিকট প্রেরণ করা হয় এবং কৃষকগণ যাতে যথাসময়ে সার ও বীজ পায় সে জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ অব্যাহত রাখে। এছাড়া কৃষকগণ যাতে জমিতে পরিমিত সার ও উন্নত বীজ ব্যবহার করে সে জন্য তাদেরকে উৎসাহিত করা হয়। বিগত অর্থ বছরে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক প্রতিটি গ্রামে বহুসংখ্যক কম্পোষ্ট সার তৈরীর স্থান নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। কৃষকগণকে উন্নত বীজ উৎপাদন করার জন্যও উৎসাহিত করা হয়। যে সকল কৃষক উন্নত বীজ উৎপাদন করতে সক্ষম তাদের তালিকা ইউনিয়ন পরিষদে টাঙিয়ে রাখা হয় এবং উক্ত তালিকার একটি কপি উপজেলা কৃষি অফিসারের নিকট প্রেরণ করা হয়।

 

  • গবাদি পশু, হাঁস-মুরগী পালন এবং মৎস্য চাষের জন্য জনসাধারণকে উৎসাহিত করা হয়। জনসাধারণ যাতে পশু ও হাঁস-মুরগীর ঔষধ ও টিকা, মৎস্য বীজ, মৎস্য চাষের যন্ত্রপাতি ইত্যাদি সহজেই সংগ্রহ করতে পারে সেজন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করা হয় এবং তাদের প্রাপ্তি নিশ্চিত করা হয়।

 

  • গ্রামের পরিচ্ছন্নতা রক্ষার বিষয়ে ইউনিয়ন পরিষদ নিরলস কাজ করে চলেছে। জঙ্গল পরিস্কার, কচুরীপানা উচ্ছেদ এবং পরিবেশকে মনোরম ও পরিচ্ছন্ন রাখার ব্যাপারে যথাযথ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

 

  • জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে ইউনিয়ন পরিষদ যথাযথ ভূমিকা পালন করছে। পরিবার পরিকল্পনা ব্যবস্থা সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করে তুলতে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগকে ইউনিয়ন পরিষদ অব্যাহত সহযোগিতা প্রদান করছে।

 

  • গ্রামের মানুষের জন্য বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা করার প্রতি এই ইউনিয়ন পরিষদ যথাযথ গুরুত্ব আরোপ করে। বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে গ্রামের বিভিন্ন স্থানে বহু সংখ্যক ডিপ সেট টিউবয়েল স্থাপন করা হয়েছে।

 

  • ইউনিয়ন পরিষদে একটি পাঠাগার স্থাপন ও বয়স্কদের জন্য নৈশ বিদ্যালয় চালু করার জন্য সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা তৈরী করার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

  • বিভিন্ন জাতীয় দিবস সমূহ ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক যথযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করা হয়। প্রতি বছর আন্তঃইউনিয়ন ফুটবল ম্যাচের আয়োজন করা হয় এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে খেলাধূলা ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানের বিষয়ে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান করা হয়।

 

  • বিধবা, অনাথ ও দরিদ্র ব্যক্তিদের সাহায্য করার ব্যাপারে ইউনিয়ন পরিষদ অগ্রণী ভূমিকা পালন করে থাকে। বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, ভিজিএফ, ভিজিডি ইত্যাদি কার্যক্রমে সরকার কর্তৃক গৃহীত কর্মসূচী যথাযথ গুরুত্ব সহকারে ইউনিয়ন পরিষদ বাস্তবায়ন করে থাকে। এছাড়া আগুন, বন্যা, ঝড়, ভূমিকম্প ইত্যাদি পরিস্থিতিতে কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অনুযায়ী ইউনিয়ন পরিষদ ত্রাণ কার্য পরিচালনা করে এবং প্রাকৃতিক দূর্যোগ দেখা দিলে জনগণকে দূর্যোগ আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করা হয়।

 

  • গ্রামাঞ্চলের জনসাধারণ ও তাদের মালামালের নিরাপত্তার জন্য ইউনিয়ন পরিষদ নিরলস কাজ করে চলেছে। ইউনিয়ন আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাধ্যমে ইউনিয়ন পর্যায়ের সকল অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। দফাদার ও গ্রাম পুলিশদের দ্বারা গ্রামগুলো প্রতিনিয়ত পাহারা দেয়া হয়। কোন সন্দেহজনক বিষয় দেখা দেয়ার সাথে সাথে থানার সাথে যোগাযোগ করে তার যথাবিহিত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। চুরি, ডাকাতি, সন্ত্রাস, মারামারি ইত্যাদি প্রতিরোধ কল্পে জনসচেতনতা তৈরীর কার্যক্রম অব্যাহত আছে।

 

  • রাজস্ব ও সাধারণ প্রশাসনের সকল কাজে চাহিবামাত্র ইউনিয়ন পরিষদ যথাযথ সহযোগিতা প্রদান করে থাকে।

 

  • ইউনিয়ন পরিষদের রাজস্ব আয় বৃদ্ধিকল্পে যথাযথভাবে ট্যাক্স নির্ধারণ ও আদায়ের প্রতি গুরুত্বারোপ করা হয় এবং ভূমি উন্নয়ন কর আদায়ের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণকে সহযোগিতা প্রদান করা হয়।

 

  • কৃষি ও কুটির শিল্পের উন্নতি ও সমবায় আন্দোলনের বিস্তার এবং বন, পশু ও মৎস্য সম্পদ বৃদ্ধির জন্য উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়নের বিষয়টি বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

 

  • গ্রাম আদালতের মাধ্যমে স্থানীয় বিরোধ সমূহ ইউনিয়ন পরিষদেই মীমাংসা করে দেয়া হচ্ছে। ফলে এই ইউনিয়নের মামলা মোকর্দ্দমার সংখ্যা খুবই কম।

 

  • সময়ে সময়ে সরকার ও স্থানীয় কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুসারে নির্দেশিত কার্যক্রম ইউনিয়ন পরিষদ আন্তরিকতা ও বিশ্বস্ততার সাথে পালন করে থাকে।

 

  • কম্পিউটার ও ইন্টারনেট এর অধিকতর ব্যবহারের মাধ্যমে অর্থ ও সময়ের অপচয় রোধ করে দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়ে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করার একটি নতুন কর্মপরিকল্পনা এই ইউনিয়ন পরিষদ সম্প্রতি গ্রহণ করেছে।


Share with :

Facebook Twitter